চাঁদপুরের জনসভায় কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ-জোট-মহাজোটের বাইরে বাম বিকল্প গড়ে তুলুন; মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ ও সাম্য সমাজ প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম এগিয়ে নিন

151116-spb-chandpur-rally-11বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ এর ৩৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ৯৯তম বার্ষিকী উপলক্ষে ১৫ নভেম্বর ২০১৬ বিকেল ৪টায় চাঁদপুর শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে এক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। দলের জেলা সমন্বয়ক কমরেড শাহজাহান তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ। আরো বক্তব্য রাখেন জেলা বাসদ নেতা হরুন অর রশীদ, বাসদ-সিপিবি ঐক্য জোটের নেতা কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মিয়াজী, নারী নেত্রী দীপালী রানী, বাসদ নেতা হারুন অর রশীদ, জয়দেব কর্মকার, আবু তাহের ও ছাত্রনেতা আল কাদেরী জয়। জনসভা পরিচালনা করেন জেলা নেতা নজরুল ইসলাম।
151116-spb-chandpur-firozঅনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা বজলুর রশীদ ফিরোজ বলেন, দেশ আজ ভয়াবহ সংকটে নিমজ্জিত। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপরীতে দাঁড়িয়ে দেশ পরিচালনা করায় আজ দেশের এ হাল হয়েছে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছিল শোষনমুক্তির চেতনা। তাই সেদিনের ঘোষণায় চেতনা হয়েছিল সাম্য, সামাজিক সুবিার ও মানবিক মর্যাদার কথা। স্বাধীন দেশের সংবিধানের মূলনীতি হিসেবে যুক্ত হয়েছিল গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতিয়তাবাদ। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশে স্বাধীনতার ৪৫ বছর পর গণতন্ত্র আজ নির্বাসিত তার বদলে চলছে স্বৈরতস্ত্র, পরিবারতন্ত্র আর লুটপাততন্ত্র। সমাজতন্ত্র তথা শোষণহীন সমাজ আজ সুদুর পরাহতে, এ জায়গায় শোষনের স্বর্গরাজ্য বানিয়েছে দেশকে ফলে বৈষম্য আজ প্রকট। ধর্মনিরপেক্ষতা-অসাম্প্রদায়িক চেতনা ধুলায় লুণ্ঠিত যে জন সংবিধানে রাষ্ট্র ধর্ম বানিয়ে সংখ্যালঘুদের ২য় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত করেছে, সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস সমাজে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। ব্রাহ্মনবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে হামলায় মন্দির ভাংচুর, গোবিন্দগঞ্জে আদিবাসী সাওতাল পল্লীতে হামলা, ও হত্যা সংগঠিত হয়েছে ইতিপূর্বে রামুতে, দিনাজপুরে হামলায় কোন বিচার হয়নি। তেল-গ্যাস ইজারা দেওয়া হচ্ছে। সুন্দরবন ধ্বংস করে ভারতের স্বার্থে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। শিক্ষা-বানিজ্য-স্বাস্থ্যÑব্যাংক সহ সমস্ত প্রতিষ্ঠানে চলছে লুটপাট। নারী-শিশু নির্যাতন বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। শ্রমিকের বাঁচার মতো মজুরি নাই, কৃষকের ফসলের দাম নাই। জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা নাই।’

তিনি বলেন, ‘ধনীক শ্রেণির শাসন-শোষন আর পুঁজিবাদি আর্থ সামাজিক ব্যবস্থাই এ জন্য দায়ী। এ থেকে মুক্তি পেতে হলে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা ও সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থার কোন বিকল্প নাই। তিনি আরো বলেন, আজ থেকে ৯৯ বছর আগে রাশিয়ায় ১৯১৭ সালে বলসেবিক পার্টির ও তার নেতার লেলিনের নেতৃত্বে দুনিয়ার প্রথম শ্রমিক বিপ্লবের মাধ্যমে সমাজতান্ত্রিক সমাজ নির্মাণ হয়েছিল। দেশে দেশে শোষনহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার লড়াই। আজকের দিনেও সারা পৃথিবীর মানুষকে মুক্তির পথ দেখাচ্ছে।’