জনগণের স্বার্থের বিপরীতে দাঁড়িয়ে সরকার লুটেরাদের স্বার্থ রক্ষা করছে-কমরেড খালেকুজ্জামান

জ্বালানি তেলের দাম কমানো ও রেলের ভাড়া না বাড়ানোর
দাবিতে সিপিবি-বাসদের সমাবেশ
120206_SPB-CPB_pic-2

জ্বালানি তেলের দাম কমানো এবং ও রেলের ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) এবং বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ-এর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বাসদ-এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান বলেছেন, সরকার একের পর এক গণবিরোধী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে। জনগণের প্রতি সরকারের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। সরকারের দায়বদ্ধতা লুটেরাদের প্রতি। জনগণের স্বার্থের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সরকার লুটেরাদের স্বার্থ রক্ষা করছে।

আজ ১২ ফেব্রুয়ারি বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ-সমাবেশে কমরেড খালেকুজ্জামান সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। তিনি ছাড়াও সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন সিপিবি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য কমরেড সাজ্জাদ জহির চন্দন, কমরেড আহসান হাবিব লাবলু, বাসদ-এর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ। সমাবেশটি পরিচালনা করেন সিপিবি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ঢাকা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাজেদুল হক রুবেল।

সমাবেশে কমরেড খালেকুজ্জামান আরো বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমলেও আমাদের দেশে সরকার জ্বালানি তেলের দাম কমাচ্ছে না। রেলে সেবার মান কমছে। কিন্তু অযৌক্তিকভাবে রেলের ভাড়া বাড়ানোর পাঁয়তারা চলছে। সরকারের এই অবস্থান অগণতান্ত্রিক ও গণবিরোধী আচরণের বহিঃপ্রকাশ। সরকার জনগণের দুর্ভোগ বাড়িয়ে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং দেশি-বিদেশি এজেন্টদের খুশি করতে চাইছে। সরকারের গণবিরোধী নীতি ও পদক্ষেপের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

কমরেড চন্দন বলেন, জনজীবনের সংকট বাড়ছেই। বিদেশে গ্যাস পাচারের পক্ষে যুক্তি দাঁড় করানোর জন্য গ্যাসের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করা হচ্ছে।

কমরেড লাবলু বলেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত না হওয়ায় সরকারের জনগণের প্রতি কোনো দায় নেই। সরকার দেশি-বিদেশি লুটেরা আর আমলা-মন্ত্রী ও সরকারি দলের গু-াদের স্বার্থ রক্ষা করছে।

কমরেড ফিরোজ বলেন, সরকারের ভুল নীতি ও পদক্ষেপের দায় জনগণ নেবে না। জনগণ ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়েই দাবি আদায় করবে।120206_SPB-CPB_pic-3সমাবেশ শেষে জ্বালানি তেলের দাম কমানো, রেলে ভাড়া না বাড়ানোর দাবিসহ বিভিন্ন দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুরানা পল্টনে এসে শেষ হয়।