নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র, কর্মঘণ্টা, ন‌্যায‌্য মজুরি, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা, দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ দাবি

IMG_2030৩০ মার্চ ২০১৮ রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্টের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবে সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি ইমাম হোসেন খোকন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শ্রমিকনেতা জাহেদুল হক মিলু, সহসভাপতি আবদুর রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন, জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নঈমুল আহসান জুয়েল, শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম এর সদস্যসচিব সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহমেদ, জাতীয় শ্রমিক জোটের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি আহসান হাবিব বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদ, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের ঢাকা নগরের সভাপতি জুলফিকার আলী, রি-রোলিং শ্রমিক ফ্রন্টের সহসভাপতি আফজাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম খান বিপ্লব, সমাবেশ পরিচালনা করেন রি-রোলিং শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক এস. এম. কাদির।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের শ্রমিকদের ঝুঁকিপূর্ণ কর্মক্ষেত্রের মধ‌্যে অন‌্যতম খাত হলো রি-রোলিং স্টিল মিলস।কারণ তারা লোহাকে ১৫০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপে গলিয়ে রডসামগ্রী তৈরি  করে। কিন্তু তাদের কোন ন‌্যায‌্য অধিকার পায় না। নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র, কর্মঘণ্টা, ন‌্যায‌্য মজুরি, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা, দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ, আবাস চিকিৎসা কিছু্ই তাদের নাই। মালিকরা শ্রম আইন, গণতান্ত্রিক বিধি-বিধান, আইএলও কনভেনশন, মানবাধিকারের ঘোষণা কোন কিছুই তোয়াক্কা করছে না। প্রায় দাসব‌্যবস্থার অনুরূপ এই খাত পরিচালিত হয়। সরকারি সংশ্লিষ্ট পরিদর্শকরা যথাযথ দায়িত্ব পালন করেনা। এটা কোনভাবেই মানা যায় না।

নেতৃবৃন্দ বলেন, দাবি আদায়ে নীতিনিষ্ঠ সংগঠিত শক্তি শ্রমিকের প্রধান হাতিয়ার। এর প্রতি অবিচল থেকে যে কোন প্রকার চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে শ্রমিকের সংঘশক্তি ধরে রেখে শক্তিশালী আন্দোলনের মাধ‌্যমে অধিকার আদায় করতে হবে।