বিশ্ব মা দিবসের আহ্বান-নারীর মর্যাদা ও অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে শামিল হোন

060516-SWF on Mothers Dayবিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম এর উদ্যোগে আজ ৬ মে ২০১৬ শুক্রবার সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নারী সমাবেশ ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি রওশন আরা রুশোর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহিলা ফোরাম এর কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য সামসুন নাহার জ্যোৎস্না, সংগঠক জেসমিন আক্তার, রুখসানা আফরোজ আশা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক মুক্তা বাড়ৈ প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম এর সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী শম্পা বসু।060516-SWF on Mothers Day-6সমাবেশে বক্তরা বলেন, মানবজাতির অগ্রগতি ও বিকাশের জন্য মায়ের গুরুত্ব অপরিসীম কিন্তু মায়ের মর্যাদা কোথায়? সমাজে মায়েরা অবহেলিত, কন্যা শিশু অবাঞ্ছিত, কিশোরী অপাংক্তেয়, তরুণী লাঞ্ছিত, বিবাহিতা নারী যৌতুকের জন্য নিগৃহীতা, কন্যা সন্তান জন্ম দিলে অপয়া, বৃদ্ধ বয়সে সন্তানের কাছে বোঝা। কিছু ব্যতিক্রম বাদ দিলে বেশিরভাগ নারীর জীবন বেদনা, উপেক্ষা, চোখের জল আর দীর্ঘশ্বাসে পূর্ণ। তাই আমরা দেখি আমাদের দেশে প্রতিদিন গড়ে ২১ জন প্রসূতি মায়ের মৃত্যু ঘটে। কুসংস্কার ও অভাবের কারণে বাল্য বিবাহ হচ্ছে তাই ১০০ জন নারীর ৬৬ জন ১৮ বছর হবার আগেই মা হয়ে যান। মা হতে পারাই নাকি নারী জীবনের পূর্ণতা অথচ কর্মজীবী নারীরা সন্তান সম্ভবা হলে তার চাকরি রক্ষা করাই কঠিন। সন্তান হলে সংসারের খরচ বাড়ে অথচ কাজ না থাকলে আয় কমে যায়। পুষ্টিহীন মা তার সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়াবে কিভাবে? তাই বাংলাদেশে ১০০ জনের মধ্যে ৩৮ জন শিশু পুষ্টিহীনতার কারণে খাটো হয়ে যাচ্ছে।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ঘরের কাজে মায়ের অবদান আছে, মূল্য নেই। সন্তান ধারণের ব্যাপারে, সন্তানের শিক্ষা, বিয়ে কোন বিষয়েই কি মায়ের মতামতের মূল্য আছে? ওয়াজের নামে, ফতোয়ার নামে যখন নারীকে হেয় করা হয় তখন কি মায়েরও মর্যাদা ভূলণ্ঠিত হয় না? ছোটবেলায় বাবার সংসারে, বিবাহিত জীবনে স্বামী ও শেষ বয়সে সন্তানের মুখাপেক্ষী থাকাই কি নারী জীবনের নিয়তি? এই বাস্তবতায় বিশ^ মা দিবস শুধু মাত্র একটি আনুষ্ঠানিকতা নয়; মায়েদের শ্রম ও অবদানের স্বীকৃতি ও মায়েদের অধিকার আদায়ের লড়াই হোক এ দিবসের প্রত্যয়।

সমাবেশে নিন্মোক্ত দাবিসমূহ তুলে ধরা হয়-

  • বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানে ৬ মাস সবেতন মাতৃত্বকালীন ছুটি কার্যকর করুন
  • প্রতিষ্ঠান ও এলাকাভিত্তিক ডে-কেয়ার সেন্টার (শিশু দিবা যত্ন কেন্দ্র) চালু করুন
  • প্রসূতি কল্যাণ ভাতা দিতে হবে
  • সকল জেলা-উপজেলায় মাতৃসদন কার্যকর করুন এবং মহিলা ডাক্তার নিয়োগ করুন
  • প্রতিটি জেলা-উপজেলায় ও শিল্পাঞ্চলে সরকারি নারী হোস্টেল নির্মাণ করুন
  • গৃহস্থালি কাজের আর্থিক মূল্য জিডিপিতে অন্তর্ভূক্ত করুন; দুঃস্থ নারীদের পুনর্বাসনের জন্য বাাজেটে থোক বরাদ্দ দিন
  • বয়স্ক অসহায় মায়েদের জন্য সরকারি উদ্যোগে জেলায় জেলায় পরিচর্যা কেন্দ্র নির্মাণ করুন
  • নারী-শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ-হত্যা বন্ধ করুন