বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ড. কামাল হোসেনসহ জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের উপর সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা

Haturi-kastey edited copyবাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান আজ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে আজ সকালে প্রবীন রাজনীতিবিদ ড. কামাল হোসেনসহ জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট নেতৃবৃন্দের উপর সন্ত্রাসীদের হামলা এবং তাদের গাড়ী বহরে ভাঙচুরসহ সারাদেশে বিরোধী দলীয় প্রার্থীদের প্রচার মিছিলে হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিছেন।
বিবৃতিতে খালেকুজ্জামান বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বেরিয়ে আসার সময় সরকার দলের পক্ষে শ্লোগান দিয়ে একদল সন্ত্রাসী নেতৃবৃন্দের উপর হামলা ও তাদের বহনকারী গাড়ী ভাংচুর করেন। এতে বেশ কয়েকজন আহত হন।
বিবৃতিতে তিনি হামলার সাথে জড়িত সন্ত্রাসী যে দলেরই হোক তাদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। বাসদ সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান নির্বাচন কমিশনকে একচোখা নীতি পরিহার করে বিরোধী সকল প্রার্থীদের জন্য সমান সুযোগ  নিশ্চিত করে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির আহ্বান জানান।
পটুয়াখালীতে বাসদের নির্বাচনী প্রচারণায় আওয়ামীলীগের হামলার নিন্দা
অপর এক বিবৃতিতে কমরেড খালেকুজ্জামান পটুয়াখালীতে বাসদের নির্বাচনী প্রচারণায় আওয়ামী লীগের তীব্র নিন্দা এবং হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে বলেন, আজ বিকাল ৪.৩০টায় পটুয়াখালী-৪ আসনের বাসদ মনোনীত বাম গণতান্ত্রিক জোটের প্রার্থী এ্যাড জহিরুল আলম সবুজ মহীপুর থানার চাপলী বাজারে গণসংযোগ এবং পথসভা করার সময় হামলা করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগের ৪০/৫০ জন সন্ত্রাসী। হামলা করে প্রচার মাইক ভেঙে ফেলে, রিক্সা চালককে আহত করে। লাঞ্চিত করে বাসদ বরিশাল জেলা শাখার সদস্য সচিব ডা: মনীষা চক্রবর্ত্তী, পটুয়াখালী-৪ আসনের বাসদ মনোনীত বাম গণতান্ত্রিক জোটের প্রার্থী এ্যাড জহিরুল আলম সবুজসহ ৭/৮ জনকে।
বাসদ নেতৃবৃন্দ চাপিলা বাজারে নির্বাচনী প্রচার করার সময় আওয়ামীলীগ সন্ত্রাসীরা লাঠিসোটা নিয়ে প্রচার কাজে বাধা দেয়, মাইক ভাংচুর করে, নেতৃবৃন্দকে লাঞ্চিত করে। এরপর স্থানীয় জনগণ সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধ করে এবং সেখানে প্রতিবাদ সমাবেশ করে। সেই সমাবেশেও আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে।