বয়লার বিস্ফোরনে শ্রমিক নিহতের আজীবন আয়ের সমপরিমাণ ৪৮ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ প্রদান করুন-গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট

মাল্টি ফ্যাবস লি: কারখানায় বয়লার বিস্ফোরনে শ্রমিক নিহতের জন্য দায়িদের সর্বোচ্চ শাস্তি ও নিহত ১৩ শ্রমিকের পরিবার প্রতি আজীবন আয়ের সমপরিমাণ ৪৮ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ প্রদান করুন-গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট
IMG_0032 copyগাজীপুরের মাল্টি ফ্যাবস লি: কারখানায় বয়লার বিস্ফোরনে ১৩ জন পোষাক শ্রমিক নিহত এবং অর্ধ শতাধিক পোষাক শ্রমিক আহত হওয়ার ঘটনায় দায়িদের সর্বোচ্চ শাস্তি, নিহত প্রতি শ্রমিকের পরিবারকে আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপুরণ প্রদান, আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা-ক্ষতিপুরণ-পুনর্বাসন এবং শ্রম আইনের কর্মস্থলে শ্রমিকের মৃত্যু জনিত কারণে ক্ষতিপুরণ ও দায়িদের শাস্তি সংশ্লিষ্ট ধারা সমুহ সংশোধন করে আজীবন আয়ের সমান ৪৮ লক্ষ টাকা এবং দায়িদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান করার দাবীতে আজ ০৫ জুলাই‘২০১৭,বুধবার, সকাল ১১-৩০টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সম্মুখস্ত সড়কে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি আহসান হাবিব বুলবুল এর সভাপতি¦তে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক ¤্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন, সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদ, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সাংগঠনিক সম্পাদক সৌমিত্র কুমার দাস, অর্থ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফ প্রমূখ। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, ১৯৯০ সাল থেকে আদ্যবধি মালিকদের মাত্রাতিরিক্ত মুনাফা লিপ্সার কারনে আগুনে পুড়ে, ভবন ধসে, বয়লার বিস্ফোরণে দুই সহ¯্রাধিক পোষাক শ্রমিক জীবিকার জন্য শ্রম বিক্রি করতে যেয়ে কর্মস্থলে মৃত্যুবরণ করেছে, অসংখ্য শ্রমিক আহত হয়েছে। এই শ্রমিকদের রক্ষা করার জন্য রাষ্ট্র-সরকার কোন উদ্যোগ নেয়নি বরং শ্রম আইনে মালিকদের অপরাধের জন্য যে শাস্তি বা জরিমানার বিধান করেছে তা মালিকদের অপরাধ থেকে নিবৃত্ত করার পরিবর্তে অপরাধ করতে উৎসাহিত করছে। শ্রমিকের মৃত্যুর জন্য মালিককে জেল খাটতে হয়না। মাত্র ১ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ দিলেই শ্রমিক হত্যার দায় থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাই মালিকরা শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পরিবর্তে অধিক মুনাফা নিশ্চিত করতে মেয়দোর্ত্তীণ বয়লার ব্যবহার করে উৎপাদন কার্যক্রম চালাতে যেয়ে বয়লার বিস্ফোরণে শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটাচ্ছে। নেতৃবৃন্দ, মালিকের স্বার্থ রক্ষাকারি বিদ্যমান শ্রম আইন সংশোধন করে গণতান্ত্রিক শ্রম আইন প্রণয়ন করার দাবি জানিয়ে বলেন, শ্রমমন্ত্রীর ৮ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ দেওয়ার ঘোষণাই প্রমাণ করে বিদ্যমান শ্রম আইন অসংগতিপুর্ণ আর শ্রমিক কল্যাণ তহবিল কিংবা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে প্রদত্ত টাকা ক্ষতিপুরণ হিসাবে বিবেচিত হতে পারেনা। ক্ষতিপুরনের টাকা মালিক-কর্তৃপক্ষকে দিতে হবে। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, তদন্ত কমিটির প্রধানের ঘোষণা অনুসারে বিস্ফোরিত বয়লারটি মেয়াদোত্তীর্ণ ছিল। তাই এই মেয়াদোত্তীর্ণ বয়লার বিস্ফোরনের দায় কারখানা কর্তৃপক্ষ এবং বয়লার পরিদর্শনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপর বর্তায়। নেতৃবৃন্দ, অবিলম্বে দায়িদের সর্বোচ্চ শাস্তি, নিহত প্রতি শ্রমিক পরিবারকে আজীবন আয়ের সমান ৪৮ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণ প্রদান এবং আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা-ক্ষতিপুরণ-পুনর্বাসনের দাবি জানান।