ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে সংহতি জানিয়ে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের বিক্ষোভ

006ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে সংহতি জানিয়ে এবং জেএনইউ ছাত্র সংসদের সভাপতি কানহাইয়া কুমারের নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের বিক্ষোভ

ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক ছাত্র সমাজের উপর বিজেপি, আরএসএস সংঘ পরিবারের সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নির্বাচিত সভাপতি কানহাইয়া কুমারসহ গ্রেফতারকৃত ছাত্র-শিক্ষকদের মুক্তির দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে সংহতি জানিয়ে আজ ২০ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১ টায় জাতীয প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচী পালন করে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটি।
12765612_10208681691027523_1272496642_oসমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমরান হাবিব রুমনের সভাপতিত্বে, দপ্তর সম্পাদক নাসির উদ্দিন প্রিন্সের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ঢাকা নগরের সভাপতি রুখসানা আফরোজ আশা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাদেক হোসেন, সজল বাড়ৈ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি এম এম মুজাহিদ অনিক এবং ইডেন কলেজ শাখার সভাপতি নবীনা আক্তার।
নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে একটি জাতির বিবেক। গণতান্ত্রিক অধিকারের চারণভূমি বিশ্ববিদ্যালয়ের কন্ঠস্বরকে আজ গলা টিপে ধরছে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার। সর্বশেষ জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনা এরই সাক্ষ্য দেয়। একদিকে পৃথিবীর বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশের কথা বলে আড়ম্বর করা হচ্ছে আবার অন্যদিকে সাম্প্রদায়িক উসকানী দিয়ে জনগণের মধ্যে উগ্র জাতীয়তাবাদী ভাবমানস তৈরী করছে বিজেপি সরকার। ভিন্ন মত দমনে তারা রাষ্ট্রীয় পেটোয়া বাহিনী যেমন লেলিয়ে দিচ্ছে আবার তাদের নিজস্ব লাঠিয়াল বাহিনীও বিভিন্ন জায়গায় গণতান্ত্রিক চেতনা সম্পন্ন মানুষের উপর হামলে পড়ছে। মোদী সরকার নিজেদের শোষণ-দুর্নীতিকে বহাল রাখতে এবং নিরঙ্কুশ করতে ভিন্ন মত দমনের ফ্যাসীবাদী উপায়কেই বেছে নিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বক্তারা।
নেতৃবৃন্দ জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপর এই সাম্প্রদায়িক মৌলবাদী হামলার সাথে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও বিচার দাবি করেন এবং একই সাথে জেএনইউ ছাত্র সংসদের সভাপতি কানহাইয়া কুমার সহ গ্রেফতারকৃত সকল ছাত্র-শিক্ষকদেও নি:শর্ত মুক্তি দেয়ার দাবি জানান।