মওলানা ভাসানী স্মরণে ১৯ ডিসেম্বর কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ সফল করুন; কৃষি-কৃষক-ক্ষেতমজুর ও দেশ বাঁচানোর সংগ্রাম এগিয়ে নিন

poster-spf-on-19-decm-16-1আমাদের দেশ কৃষি প্রধান দেশ। মোট জনসংখ্যার শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ গ্রামে বাস করে। জিডিপিতে একক খাত হিসাবে কৃষির অবদান আগের তুলনায় কমলেও এখন ও ১৬%। মোট শ্রম শক্তির ৪৯% কৃষিতে নিয়োজিত। স্বাধীনিতার পর কৃষক ক্ষেতমজুরদের পরিশ্রমের ফলে খাদ্য উৎপাদন বেড়েছে প্রায় ৪গুণ। অথচ বিগত ৪৫ বছরের ক্ষমতাসীন সরকারগুলোর চরম অবহেলার শিকার কৃষক -ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ জনগোষ্ঠী।
আগামী ১৭ নভেম্বর মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর ৩০তম মৃত্যু বাষিকী। আপনারা জানেন মওলানা ভাসানী আজীবন কৃষক-ক্ষেতমজুরসহ মেহনতী মানুষের মুক্তির জন্য আন্দোলন করে গেছেন। দেশি বিদেশি শোষক লুটরাদের লুণ্ঠন এর বিরুদ্ধে কৃষক ক্ষেতমজুর সংগঠিত করে অধিকার আদায়ে সোচ্ছার থেকেছেন। আমাদের কৃষক ক্ষেতমজুর আদিবাসী সহ শ্রমজীবি মানুষের মুক্তির লড়াইকে সফল করতে হলে ভাসানীর মতো মনীষীদের জীবন সংগ্রাম থেকে শিক্ষা নেয়া খুবই প্রয়োজন।
তাই আগামী ১৯ ডিসেম্বর ২০১৬ সোমবার নওগাঁ ঐতিহাসিক নওজোয়ান ময়দানে মওলানা ভাসানী স্মরণে কৃষক ক্ষেতমজুর আদিবাসী সমাবেশের আয়োজন করছে সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট। আপনার নৈতিক সমর্থন আর্থিক সহয়োগিতা, সক্রিয় অংশগ্রহণ উক্ত সমাবেশ সফল করতে এবং কৃষক ক্ষেতমজুর তথা গ্রামীণ শ্রমজীবী মানুষের মুক্তির সংগ্রামকে বেগবান করতে আমাদের প্রেরণা যোগাবে।
অধিকার আদায়ের সংগ্রাম সফল করতে নওজোয়ান ময়দানের কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশে যোগ দিন। বজ্র কণ্ঠে আওয়াজ তুলুন –
উৎপাদন খরচের সাথে ৩০% অতিরিক্ত মূল্য সংযোজন করে ধান, পাট, আলু, গমসহ সকল কৃষি ফসলের ন্যায্য দাম নিশ্চিত কর
প্রতি ইউনিয়নে সরকারি ক্রয় কেন্দ্র চালু করে সরকার নির্ধারিত দামে উৎপাদক কৃষকের কাছ থেকে ফসল ক্রয় করতে হবে
 ক্ষেতমজুর ভুমিহীনদের রেজিস্ট্রেন কার্ড প্রদান কর এবং সারা বছরের কাজ ও খাদ্যের নিশ্চয়তা দাও। ১৫০ দিনের কর্মসৃজন প্রকল্প চালু কর।
 গ্রাম শহরের শ্রমজীবীদের জন্য আর্মি দরে পুর্নাঙ্গ রেশনিং চালু করতে হবে।
 খাস জমি প্রকৃত ভূমিহীনদের বরাদ্দ করতে হবে।
 ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত কৃষি ঋণ সুদাসলে মওকুফ করতে হবে। সার্টিফিকেট মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। ভূমি অফিস, সাব রেজিস্ট্রার অফিস, পল্লী বিদ্যুত সমিতি, ব্যাংক ঋণ ও সেটেলমেন্টের দুর্নীতি, হয়রানী বন্ধসহ ভিজিডি, ভিজিএফ, কাবিখা, টি আর ফেয়ার প্রাইস কার্ডসহ গ্রামীণ সব প্রকল্পের দুনীতি, স্বজনপ্রীতি, দলীয়করণ লুটপাট বন্ধ করতে হবে।
 হাট বাজারে সরকারি রেটের অতিরিক্ত টোল আদায় বন্ধ করতে হবে।
 সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি উপকরণসহ সেচে ব্যবহৃত ডিজেল, বিদ্যুতের দাম কমাতে হবে। ভেজালমুক্ত কৃষি উপকরণ ন্যায্যমূল্যে সময়মত পর্যাপ্ত পরিমাণে সরবরাহ করতে হবে।
 ব্যক্তিগত মালিকানাধীন কোল্ড স্টোরেজ সিন্ডিকেটের দৌরাত্ব বন্ধ করতে হবে। আলু উৎপাদিত অঞ্চলে সরকারি উদ্যোগে পর্যাপ্ত কোল্ড স্টোরেজ নির্মাণ করতে হবে।
 আদিবাসীদের ভূমি থেকে উচ্ছেদ বন্ধ করতে হবে, ভুমি দস্যুদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি প্রদান এবং সমতল ও পাহাড়ের আদিবাসীদের ভূমির অধিকার নিশ্চিত করাসহ সাংবিধানিক স্বীকৃতি দিতে হবে।
 কৃষক, কৃষি, গ্রামীণ জনগোষ্টীর কর্মসংস্থান ও উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে উন্নয়ন বরাদ্দের ৪০% বরাদ্দ কর।

poster-spf-on-19-decm-16-2আগামী ১৯ ডিসেম্বর ’১৬ সোমবার দুপুর ২ ঘটিকায় নওগাঁর ঐতিহাসিক নওজোয়ান ময়দানে মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী স্মরণে কৃষক ও ক্ষেতমজুর সমাবেশ, প্রধান বক্তা : কমরেড খালেকুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটি, সভাপতি : বীর মুক্তিযোদ্ধা আলতাফুল হক চৌধুরী আরব, আহ্বায়ক, কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ প্রস্তুতি কমিটি