সিরিয়ায় মার্কিন ক্ষেপনাস্ত্র হামলা ও কোরীয় সাগরে মার্কিন রণতরী প্রেরণের তীব্র নিন্দা

সিরিয়ায় মার্কিন ক্ষেপনাস্ত্র হামলা ও কোরীয় সাগরে মার্কিন রণতরী প্রেরণের তীব্র নিন্দা সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ উন্মাদনার বিরুদ্ধে বিশ্ব বিবেক সোচ্চার হওয়ার আহ্বানKarl Vinsionবাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান ৯ এপ্রিল ২০১৭ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে সিরিয়ার হোমসে মার্কিন ট্রমাহক মিসাইল ক্ষেপনাস্ত্র হামলার এবং উত্তর কোরীয়ার বিরুদ্ধে রণতরী প্রেরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
বিবৃতিতে খালেকুজ্জামান বলেন, সিরিয়ার আসাদ সরকারকে অপসারণের জন্য দীর্ঘদিন ধরে সেখানকার কুর্দী ও বিদ্রোহীদের অস্ত্র, অর্থ এবং মদদ দিয়ে আসছে মার্কিন সরকার। একই সাথে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদেরও মদদ দিচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। একদিকে সন্ত্রাসীদের মদদ দেয় অন্যদিকে সন্ত্রাস দমনের নামে হামলা পরিচালনা করে দেশে দেশে তেলক্ষত্র দখল, সম্পদ লুণ্ঠন মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীদের পুরনো কৌশল।
বিবৃতিতে তিনি বলেন, আইএস দমনের নামে হামলা চালালেও আইএস-এর বিস্তার রোধ করা তাদের লক্ষ্য ছিলনা। সে কারণে দীর্ঘদিন হামলা চালিয়েও যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আইএস দমন করতে পারেনি, অথচ রাশিয়া ২/৩ দিনেই হামলা চালিয়ে আইএস-কে কোনঠাসা করে ফেলেছে; এতে মার্কিনীদের মুখোস উন্মচিত হয়ে গেছে। এখন কোন অজুহাতেই আসাদ সরকারকে উৎখাতই হলো লক্ষ্য ফলে এবারে রাসায়নিক অস্ত্র, গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগ এনে সিরিয়ায় হামলা চালানো হয়েছে।
বিবৃতিতে খালেকুজ্জামান বলেন, ইতিপূর্বে ইরাকে, সিরিয়া-লিবিয়ায় এধরনের মিথ্যা অভিযোগে হামলা করে সে দেশের তেল সম্পদ লুট করেছে।
তিনি বলেন, কোন দেশের সরকার থাকবে কি থাকবে না সেটা সেই দেশের জনগণের উপর নির্ভরশীল। মার্কিনীদের নাক গালানোর বিষয় না।
বিবৃতিতে খালেকুজ্জামান উত্তর কোরীয়ার উপর হামলার হুমকী এবং কোরীয় সাগরে মার্কিন রণতরী প্রেরণেরও তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানিয়ে এ ধরনের যুদ্ধ তৎপরতা বন্ধের জোর দাবি জানান। তিনি বলেন, পুঁজিবাদী-সাম্রাজ্যবাদী সংকট আড়াল করা ও তা থেকে বেরোনোর জন্য সাম্রাজ্যবাদী শক্তি দেশে দেশে যুদ্ধ বাধায়, যুদ্ধ উন্মাদনা তৈরি করে তা সামরিক অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য।
বিবৃতিতে তিনি সিরিয়ায় মার্কিন হামলা ও দেশে দেশে সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ উন্মাদনার বিরুদ্ধে মার্কিন জনগণসহ সারা বিশ্বের শান্তিকামী যুদ্ধবিরোধী প্রগতিশীল শক্তি, জনগণ ও বিশ্ব বিবেককে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান।