প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে বাসদ-এর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া

প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে বাসদ-এর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া
বাজেট বক্তৃতায় কথার ফুলঝুড়ি থাকলেও
ধনি-দরিদ্রের বৈষম্যকে আরও দ্রুতগতিতে বাড়াবে

Haturi-kastey edited copyবাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান আজ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে কথামালার ফুলঝুড়িতে ভরা, গতানুগতিক আখ্যা দিয়ে বলেন, এ বাজেট ধনি তোষণের। বাজেট ধনী-দরিদ্র বৈষম্য আরো দ্রুত বৃদ্ধি করবে উল্লেখ করে বলেন, ‘বাজেট ২০১৮-১৯ প্রণয়নে বৈচিত্রসৃষ্টি ও গণআকর্ষণ তৈরির প্রচেষ্টা থাকলেও তা অতীতের গতানুগতিকতা ও আমলাতান্ত্রিকতার বৈষ্টনী ভেদ করে বেরিয়ে আসতে পারেনি। বাজেট বক্তৃতায় গোটা আর্থিক ব্যবস্থার চলমান বিশৃঙ্খলা, অনিয়ম-অপচয়, দুর্নীতি, দলীয়করণদুষ্ট স্বজনপ্রীতি ইত্যাদি যথাযথ মূল্যায়ন হয়নি। ফলে বাজেটের আকার বৃদ্ধির সাথে পাল্লা দিয়ে বাস্তবায়ন কার্যকারিতা আরও সংকুচিত হয়ে আসবে। বিবৃতিতে বলা হয়, বিশাল বাজেট ঘাটতি উচ্চারিত রেখে বড় আয়তনের বাজেট ঘোষণার কৃতিত্ব জাহির করা বেমানান। তিনি বাজেট প্রণয়নে যেমন সর্বস্তরের জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণের প্রক্রিয়া অনুপস্থিত তেমনি বাজেট বরাদ্দ বাস্তবায়ন কার্যক্রমও অতীতের মতোই থাকছে স্বচ্ছতা ও জবাবাদিহিতাহীন। একাদশ সংসদ নির্বাচনের অতি কাছাকাছি সময়ে প্রণীত হওয়ার কারণে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব প্রতিপত্তিশালী, তাদের আশির্বাদপুষ্ট ব্যবসায়ীগোষ্ঠী, কায়েমী স্বার্থবাদী মহল, অনুগত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যৌথ উদ্যোগে ঘিরে ফেলে ছেঁকে তোলার মাধ্যমে জনগণের নামে জনগণের বরাদ্দের একটা বড় অংশ বেহাত হয়ে যাবার আশংকা রয়েছে। ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য যে গতিতে বেড়ে চলেছে বর্তমান বাজেট তা আরও দ্রুতগামী করবে এবং আগামী নির্বাচন ও বাজেট বাস্তবায়ন দুটোই হযবরল অবস্থায় পতিত অবস্থায় পড়ার নিশ্চিত সম্ভাবনা রয়েছে।