ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল, দুর্নীতিবাজ এমডি’র অপসারণ দাবিতে স্মারকলিপি পেশ

  •  
  •  
  •  

ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল, দুর্নীতিবাজ এমডি’র অপসারণ ও ঢাকা মহানগরের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি পেশ
SPB-210621-1করোনা সংকটে মানুষের আর্থিক দুরাবস্থার সময়ে ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, দুর্নীতিবাজ এমডি তাকসিম এ খানের অপসারণ ও ঢাকা মহানগরের দখলকৃত খাল-পুকুর-ডোবা উদ্ধার করে জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ এর উদ্যোগে আজ ২১ জুন ২০২১ বেলা ১২টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ শেষে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি পেশ করা হয়।
বাসদ ঢাকা মহানগর শাখার আহ্বায়ক ও বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন, বাসদ কেন্দ্রীয় বর্ধিত পাঠচক্র সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ জেলা সমন্বয়ক নিখিল দাস, বাসদ ঢাকা মহানগর সদস্য সচিব জুলফিকার আলী, আহসান হাবিব বুলবুল ও খালেকুজ্জামান লিপন। সমাবেশ শেষে একটি প্রতিনিধি দল সচিবালয়ে মন্ত্রীর দপ্তরে স্মারকলিপি পেশ করেন।
SPB-210621-7সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, ঢাকা ওয়াসা ১৯৬৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল নগরবাসীকে সুপেয় পানি সরবরাহের একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে। কিন্তু কালের পরিক্রমায় এ প্রতিষ্ঠানটি মুনাফালোভী বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। বর্তমান সরকার গত ১৩ বছরে ১৪ বার পানির দাম বৃদ্ধি করলো। আর এই জনদুর্ভোগ বাড়ানোর ক্ষেত্রে দুর্নীতিবাজ ওয়াসা এমডি’র কারসাজি মুখ্য ভূমিকা পালন করছে। সরকার সকল নিয়ম-রীতি ভেঙে তাকসিম এ খানের মতো দুর্নীতিবাজকে ওয়াসার এমডি হিসেবে গত ২০১০ সালের ১৪ অক্টোবর নিয়োগ দেয়ার পর দফায় দফায় মেয়াদ বৃদ্ধি করছে। একই সাথে তার বেতনও বৃদ্ধি করে চলেছে। শুরুতে ৬০ হাজার টাকা মূল বেতন অন্যান্য ভাতাসহ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা বর্তমানে ৪২১% বৃদ্ধি করে ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।
SPB-210621-9নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনার এই সংকটকালে মানুষের আয় যখন কমে গেছে, কাজ হারিয়ে বেকার হয়েছে তখন পানির দাম বৃদ্ধি মরার ওপর খাড়ার ঘা এর সামিল। নেতৃবৃন্দ পানির দাম বৃদ্ধি নয়, ওয়াসার দুর্নীতি-অনিয়ম বন্ধের দাবি জানান।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ঢাকা শহরের চারদিকে চারটি নদী রয়েছে; তার পরও পানি নিষ্কাশন হয় না। সামান্য বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতায় নগর জীবন দুর্বিসহ হয়ে পড়ে। শহরের খাল, পুকুর, জলাধার দখল হয়েছে, পাম্পগুলো নষ্ট হয়ে রয়েছে। পাম্প মেরামত ও খাল-পুকুর উদ্ধারে তেমন কোন উদ্যোগ নাই।
সমাবেশ থেকে নিন্মোক্ত দুই দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

SPB-210621-8১) ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্ত বাতিল করুন, দাম বৃদ্ধি নয়, দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ করুন। দুর্নীতিবাজ ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খানকে অপসারণ করুন।

২) ঢাকা শহরের খাল-পুকুর-ডোবা উদ্ধার করে, জলাবদ্ধতা দূর করুন, নগর জীবন রক্ষা করুন।

নিচে স্মারকলিপি যুক্ত করা হলো-

তারিখ: ২১ জুন ২০২১

বরাবর
মাননীয় মন্ত্রী
স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
বাংলাদেশ সচিবালয়
আব্দুল গণি রোড, ঢাকা।

বিষয়: ওয়াসার পানির বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার, দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ, দুর্নীতিবাজ ওয়াসা এমডি’র অপসারণ ও ঢাকা শহরের খাল-পুকুর উদ্ধার করে জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে স্মারকলিপি।

জনাব,
শুভেচ্ছা নিবেন।
গত ১৫ মাস ধরে সারা বিশ্বের মতো আমরাও বাংলাদেশের জনগণ এক সংকটকাল অতিবাহিত করছি। করোনা মহামারি মানুষের জীবন ও জীবিকার উপর চরম আঘাত হেনেছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কর্মসংস্থানসহ সবকিছু বিপর্যস্ত। ব্রাকসহ বিভিন্ন সংস্থার জরিপ বলছে, করোনাকালে ৬২% মানুষের আয় কমে গেছে। নতুন আড়াই কোটি মানুষ কাজ হারিয়ে নতুন দরিদ্র হয়েছে। দরিদ্র ২০% থেকে বেড়ে ৪২% হয়েছে। ৫২% মানুষ তাদের খাদ্য গ্রহণ কমিয়ে দিয়েছে।
একদিকে কর্মহীন, আয় কমে যাওয়া মানুষ অতীব কষ্টে দিনাতিপাত করছে। অন্যদিকে দফায় দফায় চাল, ডাল, তেল, নুন, পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম হু হু করে বাড়ছে। দ্রব্যমূল্য ক্রমাগত মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। এই অবস্থার মধ্যেই ওয়াসার পানির দাম আরেক দফা বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে যা ১ জুলাই থেকে কার্যকর হওয়ার কথা।
আমরা সকলেই জানি ঢাকা ওয়াসা ১৯৬৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল নগরবাসীকে সুপেয় পানি সরবরাহের একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে। কিন্তু কালের পরিক্রমায় এ প্রতিষ্ঠানটি মুনাফালোভী বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। সেবার মান বাড়ানো, বিশুদ্ধ সুপেয় পানি সব এলাকায় পর্যাপ্ত পরিমাণে সরবরাহে ওয়াসার তেমন কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। ১৯৯৬ সালে সরকার যে ওয়াসা আইন করেছে তাতে প্রতি বছর উৎপাদন খরচের সাথে সমন্বয় করতে ৫% হারে পানির দাম বৃদ্ধি করতে পারবে বলে উল্লেখ আছে। পদ্মা (জশলদি), ভার্কুতা প্রকল্পসহ ওয়াসার বৃহৎ প্রকল্পে দুর্নীতির চিত্র ইতিমধ্যে পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে। ঢাকাবাসী মনে করে দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ করলে দাম বৃদ্ধি না করে বরং কমানো যায়। অথচ সরকার দুর্নীতি বন্ধ না করে করোনাকালেও পানির দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে যা অত্যন্ত অযৌক্তিক ও গণবিরোধী। এ নিয়ে সরকার গত ১৩ বছরে ১৪ বার পানি দাম বৃদ্ধি করলো। আর এই জনদুর্ভোগ বাড়ানোর ক্ষেত্রে দুর্নীতিবাজ ওয়াসা এমডি’র কারসাজি মুখ্য ভূমিকা পালন করছে। সরকার সকল নিয়ম-রীতি ভেঙে তাকসিম এ খানের মতো দুর্নীতিবাজকে ২০১০ সালের ১৪ অক্টোবর ওয়াসার এমডি হিসেবে নিয়োগ দিয়ে দফায় দফায় মেয়াদ বৃদ্ধি করে চলেছে। একই সাথে গত ১১ বছরে তার বেতন ১ লাখ ২০ হাজার টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। এ নিয়ে তার বেতন ৪২১% বেড়েছে। এমডির এই বেতন বৃদ্ধিতে প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তাকসিম সাহেবের পরে কোন এমডি একই পরিমাণ বেতন পাবে না ওয়াসার চেয়ারম্যানের এমন বক্তব্যে দেশবাসীসহ আমরা অবাক হয়েছি ।
পানির দামের সাথে সাথে পয়ঃনিস্কাশনের দামও সমপরিমাণে বাড়ে। ঢাকা শহরের মাত্র ২০% এলাকায় পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা আছে।
মাননীয় মন্ত্রী,
আপনি নিশ্চয়ই জানেন, ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা সংকট আজ এমন যে, সামান্য বৃষ্টিতেই জলজট ও যানজটে নগরবাসী নাকাল। সকল খাল, পুকুর, ডোবা ভরাট ও দখল হয়ে গেছে। পাম্প স্টেশনগুলো নষ্ট হয়ে আছে। কল্যাণপুরে বৃহৎ জলাধার (রিটেনশনপন্ড) এর ১৭১ একর জমির ১৭০ একরই দখল হয়ে গেছে। ফলে ঢাকার চার পাশে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা, বালুসহ চারটি নদী থাকার পরও পানি নিস্কাশন ব্যবস্থার ভঙ্গুর দশা। দুর্নীতি লুটপাটের স্বার্থে ওয়াসার প্রকল্প সমূহের সময় ও ব্যয় বৃদ্ধি নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এ ব্যয় বৃদ্ধির বোঝা চাপানো হয় সাধারণ জনগণের উপর। এ প্রেক্ষিতে ঢাকাবাসীর পানি ও জলাবদ্ধতার সংকট মোচনের লক্ষ্যে আমরা আপনার মাধ্যমে নিন্মোক্ত দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান জানাচ্ছি।
১) ওয়াসার পানির দাম বৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্ত বাতিল করুন, দাম বৃদ্ধি নয়, দুর্নীতি-লুটপাট বন্ধ করুন। দুর্নীতিবাজ ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খানকে অপসারণ করুন।
২) ঢাকা শহরের খাল-পুকুর-ডোবা উদ্ধার করে, জলাবদ্ধতা দূর করুন, নগর জীবন রক্ষা করুন।

ধন্যবাদান্তে

বজলুর রশীদ ফিরোজ
আহ্বায়ক
ঢাকা মহানগর শাখা
বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ
মোবাইল : ০১৭১১৫৩৭৩৯৯


  •  
  •  
  •  

Translate »