ব্যাটারি রিকশা ও ইজিবাইক এর লাইসেন্স প্রদানসহ ৫ দফা দাবিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ে স্মারকলিপি পেশ

  •  
  •  
  •  

 

ব্যাটারিচালিত যানবাহন সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়নে কার্যক্রমে ব্যাটারি রিকশা ও ইজিবাইক অর্ন্তভূক্ত ও লাইসেন্স প্রদান করাসহ ৫ দফা দাবিতে সমাবেশ এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ে স্মারকলিপি পেশ

Batary Rickshaw + Essy Bike-290921-3রিকশা, ব্যাটারি রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদ কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদ এর উদ্যোগে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ ২৯ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগ্রাম পরিষদ এর আহ্বায়ক খালেকুজ্জামান লিপন ও সন্চালনা করেন সদস্য সচিব প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন।সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগ্রাম পরিষদ এর নেতা মেহেদী হাসান, বাবু হাসান, মোঃ সুমন, জালাল হোসেন। সমাবেশ বক্তাগন বলেন, সারাদেশে প্রায় ৫০ লাখ শ্রমিক ব্যাটারিচালিত রিক্সা, ইজিবাইক, রিক্সা ও ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে এবং এটা সাধারণ মানুষের একমাত্র বাহন। এই সব রিক্সা, ভ্যান ও ইজিবাইক যাত্রী পরিবহণ, পণ্য পরিবহণ এমনকি রোগী পরিবহনের ক্ষেত্রে দেশের সর্বত্র ব্যবহৃত হয়। সারাদেশে রিকশা, ব্যাটারি রিকশা, ইজিবাইক যে একটি গুরুত্বপূর্ণ খাত তা অস্বীকার করার উপায় নেই। এ ক্ষেত্রে প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে, ৪২ টি উপখাত সৃস্টি হয়েছে।এখানে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে আড়াই কোটি মানুষ নির্ভরশীল। বিদ্যুৎচালিত বলে এই সব বাহন শব্দ দূষণ কিংবা পরিবেশ দূষণ করে না, জ্বালানী অপচয় করে না, অল্প সময়ে এবং অল্প জায়গা ব্যবহার করে অধিক যাত্রী পরিবহন করে।কিন্ত সরকার এই বাহনকে চলতে না দিয়ে তাকে উচ্ছেদ করার জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহন করছে।উচ্ছেদ না করে একটি সঠিক নীতিমালা প্রণয়ন ও আধুনিকায়ন করে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ইজিবাইককে লাইসেন্স প্রদান করা হলে রাষ্ট্র যেমন রাজস্ব পাবে তেমনি সড়কে শৃঙ্খলা রক্ষা করা যাবে।

সমাবেশে বক্তাগন বলেন, সংগ্রাম পরিষদের দীর্ঘদিনের আন্দোলনের চাপে সরকার ইতোমধ্যে ব্যাটারি চালিত যানবাহন সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছে।কিন্ত সেখান থেকে ব্যাটারি রিকশা ও ইজিবাইককে অর্ন্তভূক্ত না করার জন্য নানা মহল চক্রান্ত ষড়যন্ত্র করছে।বক্তাগন নীতিমালায় ব্যাটারি রিকশা ও ইজিবাইককে অর্ন্তভূক্ত করে ৫০ লাখ চালক, গ্যারেজ মালিক, মেকানিক ও তাদের উপর নির্ভরশীল আড়াই কোটি মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষা করাসহ সংগ্রাম পরিষদ ঘোষিত ৫ দফা দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল জাতীয় প্রেসক্লাব-তোপখানা রোড হয়ে সচিবালয় লিংক রোডে পুলিশি বাধায় শেষ হয়।সেখান থেকে সংগ্রাম পরিষদ এর সদস্য সচিব প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন ও সদস্য মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে ২ সদস্যের একটি টিম সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করে।


  •  
  •  
  •  

Translate »